Ειδήσεις &
Τοπικά Νέα

Ελλάδα    >    Ειδήσεις & Νέα

বাংলাদেশের হৃদয় গলানো কয়েকটি 'সিনেমা'

বাংলা সিনেমার রয়েছে প্রাচীন ও গৌরবময় ইতিহাস। ১৯২৭ সালে ঢাকার নবাব পরিবারের তরুনদের মাধ্যমে নির্বাক ছবির যাত্রা শুরু হলেও ১৯৫৭ সালে আব্দুল জাব্বার খানের পরিচালনায় ‘মুখ ও মুখোশ’ নামে প্রথম সবাক সিনেমা নতুন ইতিহাস রচনা করে। তারপর আর এ অগ্রযাত্রা থেমে থাকেনি। সময়ের আবর্তনে বাংলা সিনেমার মুকুটে যুক্ত হয়েছে অসংখ্য সোনালী পালক। আর সেইসব সোনালী পালক থেকে হৃদয় গলানো কয়েকটি ছবি খুঁজে বের করে আনা খড়ের গাঁদায় সুই খোঁজার মতই, তবুও চেষ্টা করতে ক্ষতি কি!


মনপুরাঃ

মনপুরা ২০০৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত একটি বাংলাদেশী চলচ্চিত্র। ছবিটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন গিয়াস উদ্দিন সেলিম। এই ছবিটি পরিচালনার মাধ্যমে সেলিম প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করলেন। সম্পূর্ণ গ্রামবাংলার পটভূমিতে নির্মিত, পারিবারিক ও প্রেমের গল্পের এই ছবিটিতে প্রধান দুটি চরিত্রে অভিনয় করছেন চঞ্চল চৌধুরী ও ফারহানা মিলি। মনপুরা ২০০৯ সালের সেরা ব্যবসা সফল সিনেমা ছিল। চলচ্চিত্রটি ৩৪তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রসহ পাঁচটি বিভাগে এবং ১২তম মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কারে দুটি বিভাগে পুরস্কার লাভ করে।


কাহিনী সংক্ষেপঃ 

গভীর রাতে প্রভাবশালী গাজীর মানসিক প্রতিবন্ধী ছেলে হালিম একটা খুন করে ফেলে। গাজী সাহেবের ছেলেকে রক্ষা করতে স্ত্রীর পরামর্শে বাড়ির এতিম কাজের ছেলে সোনাইকে মনপুরা দ্বীপে নির্বাসনে পাঠানো হয় যাতে সবাই সোনাইকে দোষী ভাবে। মনপুরা চরে মাছ মাড়তে আসে পরীর বাপ সাতে পরীও ছিল সেখানেই সোনাইয়ের সঙ্গে দেখা হয় পরীর। পরী জেলের মেয়ে, চরের দিকে মাছ ধরতে আসে বাবার সঙ্গে। যত দিন গড়ায় সোনাই আর পরী ততই একে অপরের কাছাকাছি আসে। একদিন চরে এসে গাজী দেখে ফেলে পরীকে। ঠিক করে পাগল ছেলে হালিমের সঙ্গে পরীর বিয়ে দেবে। হুজুরও বলেছে বিয়ে দিলে ছেলের মাথা ঠিক হবে। তাছাড়া কোনো অবস্থাসম্পন্ন ঘরের মেয়ে তো আর পাগলের বউ হবে না, এই মেয়ে সুন্দর এবং গরিব। কিন্তু ততদিনে সোনাই আর পরীর সম্পর্ক বেশ জমেই উঠেছে। সোনাই গাজীকে বলে তার বিয়ের সম্বন্ধ নিয়ে পরীর বাবার কাছে যেতে অতএব মেয়ের বাবার কাছে সম্বন্ধ নিয়ে যায় গাজী। কিন্তু পরী বিয়ে ঠিক হয় গাজীর পাগল ছেলের সঙ্গে। পরী আর সোনাইর কাছে আসেনা। অপেক্ষা সহ্য না করতে পেরে সোনাই গাং পাড়ি দিয়ে যায় পরীর বাড়ী তারা পরিকল্পনা করে তারা পালিয়ে যাবে কিন্তু আজকে না আগামীকাল। কিন্তু এর পরের দিন সোনাই ধরা পড়ে পুলিশের হাতে। এরপর হালিমের সঙ্গে অনেকটা জোর করেই বিয়ে হয় পরীর। দিন যায়, সোনাইকে ভুলতে পারে না পরী। পরীর শাশুরি মানে গাজীর বউ পরীকে মিথ্যে খবর দেয়, বলে সোনাইয়ের ফাঁসি হবে শুক্রবার রাত ১২ঃ০১ মিনিটে। এ খবর সহ্য হয় না পরীর। বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করে সে। 


বিস্তারিত আসছে

আয়নাবাজিঃ

বিস্তারিত আসছে

মাটির ময়নাঃ 

বিস্তারিত আসছে

আগুনের পরশমণিঃ

বিস্তারিত আসছে

জীবন থেকে নেয়াঃ

বিস্তারিত আসছে 

দীপু নাম্বার টুঃ


manilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manilamanilamanilamanilamanilarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja

Δημοσιεύθηκε στις 8 July 2018 | 7:57 pm


খোস পাঁচড়া ফোট খুঁজলি চুলকানি রোগের ঔষধ

যদিও পাঁচড়া বা খুঁজলি রোগ একটি মারাত্মক অসুখ নয় কিন্তু এটি একটি সংক্রামিত অসুখ । তাই আপনার কাছে অনুরোধ থাকবে, পাঁচড়া হলে সাথে সাথেই তার চিকিৎসা করানো – নতুবা আপনার কারনে আপনার পরিবার বা সমাজের অন্যান্যরাও সংক্রামিত হতে পারে। যাইহোক, পাঁচড়া বা খুঁজলি হলে আমরা অনেকেই এন্টিহিস্টামিন বা করটি-কস্টারয়েড জাতীয় ক্রিম লাগিয়ে ভাল হয়ে যাই মনে করি। কিন্তু বাস্তবে তা সম্পুর্ন ভুল । কারন, এ জাতীয় মলম শুধুমাত্র শরীরের আক্রান্ত স্থানের চুলকানি কমায় কিন্তু খুঁজলি পাঁচড়ার পোকা বা তার ডিম কে নষ্ট করতে পারেনা। এবং অনেকের ক্ষেত্রে ভাল হওয়ার পরিবর্তে মারাত্মক অবস্থার সৃষ্টি করে। বিশেষ করে শিশুদের। তাই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী জীবাণু নষ্ট হয় এ জাতীয় ক্রিম ব্যাবহার করলে তা কমে যাবে এবং আবার হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না।

খোস পাঁচড়া খুঁজলি রোগ কি ?

অত্যন্ত ছোঁয়াচে একটি রোগের নাম খোস পাঁচড়া খুঁজলি বা স্ক্যাবিস, এটি সারকপটিস স্ক্যাবি নামক ক্ষুদ্র মাইট দ্বারা হয়ে থাকে। মাইট উকুনের থেকে ছোট একটি জীবাণু।

সম্পর্কিত অনুসন্ধানঃ খোস পাঁচড়া ফোট খুঁজলি চুলকানি রোগের ঔষধ খোশ পাঁচড়া ঔষধ খুজলি রোগের ঔষধ শিশুর খোস পাঁচড়া পাঁচড়া চিকিৎসা স্ক্যাবিস চিকিৎসা চুলকানি ঔষধ স্ক্যাবিস থেকে মুক্তির উপায় স্ক্যাবিস এর চিকিৎসা খুজলি রোগের ঔষধ স্ক্যাবিস চিকিৎসা চর্ম রোগের ঔষধ চুলকানি স্ক্যাবিস কি চুলকানি ঔষধের নাম কি এলার্জির ঘরোয়া চিকিৎসা চুলকানি দূর করার ক্রিম
videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos videos

Δημοσιεύθηκε στις 17 November 2017 | 7:14 am


দাড়ি গজানোর ঘরোয়া উপায়

দাড়ি গজানোর ঘরোয়া উপায়ঃ সাধারণত বয়সন্ধিকালের বা বয়সন্ধিকালোত্তীর্ণ ছেলেদের মুখে দাড়ি গজায়। একজন পুরুষের প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার বয়স সাধারণত ১২ থেকে ১৫ বছর অর্থাৎ এই বয়সেই ছেলেদের শরীরে অনেক পরিবর্তন হয়ে থাকে, যার একটি হচ্ছে মুখে দাড়ি-গোঁফ ওঠা।  এক্ষেত্রে পুরুষ হরমোন টেস্টস্টেরনের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।  বর্তমানে তরুণদের মুখে একটি প্রশ্নই বারবার ঘুরপাক কাচ্ছে সেটি হল, বয়স তো অনেক হল আমার তাহলে মুখে দাঁড়ি গজায় না কেন? কারন হচ্ছে, এন্ড্রোজেন নামক হরমোন আছে আর এই হরমোনের কাজ হচ্ছে মুখে দাড়ি বুকে লোম গজানো এবং কণ্ঠস্বর ভারি করে তোলা। এন্ড্রোজেন ক্ষরণ না হলে মুখে দাড়ি উঠবে না। এটি একটি শারীরিক সমস্যা হতে পারে।  তবে আপনার বয়স যদি হয় ২০ বছর এর কম সেক্ষেত্রে দাঁড়ি গজানোর সম্ভাবনা এখনও রয়েছে।  এমনও হতে পারে  কারও কারও কিছুটা বয়স হলে পরে দাঁড়ি গজায়।  এক্ষেত্রে আপনি নিম্নে দেওয়া কিছু টিপস অনুসরণ দেখতে পারেন এছাড়া একজন ভাল হরমোন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিতে পারেন।

দাড়ি গজাতে মুখে তেলের ব্যবহার

নারিকেল তেল, আমলকীর তেল রেড়ীর তেল দ্রুত দাড়ি গজাতে সাহায্য করে।  ১৫ থেকে ২০ মিনিট  তেল দিয়ে মুখ ম্যাসাজ করুন। এরপর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।  অথবা রাতে ঘুমানোর আগে মুখ ম্যাসাজ করে তেল নিয়েই ঘুমিয়ে পরুন।  আর রেড়ীর তেল কে ইংরেজিতে ক্যাস্টর অয়েল বলে।। ক্যাস্টর অয়েল সাধারাণত সুপার সপ গুলো ছাড়া পাওয়া যায়না।  একেত্রে মুদি দোকানে না গিয়ে সোজা সুপার সপে চলে যান।

দাড়ি ভালোভাবে গজাতে যথেস্ট ঘুম প্রয়োজন

দাড়ি ভালোভাবে এবং তারাতারি গজানোর জন্য ঘুম খুবই জরুরি।  ঘুম ক্ষতিগ্রস্ত কোষকে পুনর্গঠনে সাহায্য করে দ্রুত দাঁড়ি গজাতে সাহায্য করে।


শুনুনঃ বিশ্বের সেরা কোরআন তেলাওয়াত।

বাহির থেকে ফেরার পর করণীয়

বাহির থেকে ফিরে ফেইসওয়াস দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন।  আর সপ্তাহে অন্তত একবার স্ক্রাব ব্যবহার করুন।  কারন, স্ক্রাব ত্বকের গভীরের ময়লা সহজেই তুলে আনে এবং স্ক্রাবের ভেতরের দানাদার উপাদান সহজেই মুখের ত্বকে থাকা মৃত কোষ সরিয়ে নতুন দাঁড়ি গজাতে সাহায্য করে

যেসব খাবার খাওয়া উচিত

প্রোটিন-সমৃদ্ধ খাবার খাদ্যতালিকায় যোগ করুন।  ডিম, মাছ, মাংস, বাদাম ইত্যাদি ইত্যাদি এককথায় যদি মুখে দারি দ্রুত উঠাতে চান তাহলে প্রোটিন-সমৃদ্ধ খাবার খেতেই হবে। এগুলা মুখে দাড়ি দ্রুত গজাতে সাহায্য করবে। এবং কিছু ভিটামিন এবং মিনারেলও দাড়ি তারাতারি উঠাতে সাহায্য করে। খাদ্যতালিকায় ভিটামিন এ, ভিটামিন সি এবং ভিটামিন ই-সমৃদ্ধ খাবার রাক্তে ভুলবেন না।

দুশ্চিন্তা থেকে দূরে থাকা

চিন্তা, মানসিক চাপ কম থাকলে মুখে দাড়ি দ্রুত গজায়। চিন্তা, মানসিক চাপ থাকলে সেক্ষেত্রে, আপনি ধ্যান করে বা যোগব্যায়াম করে মানসিক চাপ কমানোর চেষ্টা করতে পারেন।

কখন সেবিং করবেন

গনগন সেব করলে দাড়ি কিছুটা তাড়াতাড়ি উঠে ও শক্ত হয় ধারনাটি সম্পুর্ন ভুল। এটা একটা মিথ। এর বৈজ্ঞানিক কোন প্রমাণ নেই। বরং গনগন সেব করার কারনে দাড়ি্র গ্রোথ কমে যায়। দাড়ি বড় বা ঘন হয় না। আপনাকে যা করতে হবে সেটি হল, ছয় সপ্তাহ পর পর দাড়ি কাটতে হবে এবং নিয়মিত চিরুনি বা ব্রাশ দিয়ে  আচড়াতে হবে যা রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে দাড়ি বৃদ্ধি করতে সহায়তা করবে।

আর দেখুনঃ 

দাড়ি গজাতে পেঁয়াজের রস কিভাবে ব্যবহার করবেন
দ্রুত ঘন দাড়ি গজানোর প্রাকৃতিক উপায়
ব্রনের দাগ তোলার উপায়
শ্রেষ্ঠ কোরআন পাঠ

#Search terrms:
নতুন দাড়ি গজানোর কৌশল
দাড়ি ঘন করার ৫ উপাই
চাপ দাড়ি দাড়ি না গজানোর কারণ
দাড়ি না গজানোর কারন
দাড়ি গজানোর ১০ প্রাকৃতিক উপায়
দাড়ি ঘন করার উপায় কি
দাড়ি গোঁফ গজানোর উপায়
দাড়ি গজানোর ক্রিম
দাড়ি গজানোর ঘরোয়া উপায়
দাড়ি গজানোর টিপস
দাড়ি ঘন করার উপাই
ঘন দাড়ি গজানোর উপায়
দাড়ি গজানোর ওষুধ
চাপ দাড়ি মুখে দাড়ি উঠানোর উপায়
কিভাবে মুখে দাঁড়ি উঠানো সম্ভব
দাড়ি ভালো গজাবে যে উপায়ে
দাড়ি উঠানোর উপায় কি
pptcpptcpptcpptc pptcpptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptcpptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptcpptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptcpptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptcpptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptcpptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc pptc

Δημοσιεύθηκε στις 12 October 2017 | 12:43 am


ঢাকা অ্যাটাক ১০০ভাগ 'সত্য রিভিউ'


ঢাকা অ্যাটাক সিনেমাটি নিয়ে অনলাইন-অফলাইন দুই জায়গায়তেই প্রচুর আলোচনা সমালোচনা হচ্ছে। চারপাশে এত মাতামাতি দেখে ভাবছিলাম যতটা গর্জে আসলে ততটা বর্ষে না কিন্তু আমার ধারণা ভুল প্রমাণিত হয়েছে সিনেমাটির গল্প, অভিনয়, গান, অ্যাকশন-থ্রিলার, রোমাঞ্চ, ইমোশন, ব্যাকগ্রাউন্ড সাউন্ড এবং ভিডিও কুয়্যালিটি সবমিলিয়ে ছবিটা আমার বেশ ভাল লাগে এবং আমার অর্থ ও সময়ের সুবিচার হয়েছে।তবে সবমিলিয়ে ছবির গল্প আদৌ কি ইন্টারেষ্টিং ছিলো? আমার কাছে তো এই গল্প অতি সাদামাটা মনে হয়েছে। ছবিতে থ্রিল তৈরির জন্য এতো সহজ গল্প একেবারেই যথেষ্ট না। তারপরও এই গল্পের চিত্রনাট্যটিও যদি একটু ইন্টারেষ্টিং হতো তো গল্পটা উপভোগ করা যেত। ঢাকা এটাক একটা দুর্দান্ত কিংবা এক কথায় অসাধারন একটা একশন থ্রীলার হতে পারতো যদি এর গল্প ও চিত্রনাট্য অসাধারণ হতো। কিছু দুর্দান্ত টুইষ্ট এন্ড টার্ন, কিছু সিনেম্যাটিক থ্রীল গল্পে থাকলে ঢাকা এটাক নামের থ্রীলারটা দারুন জমজমাট হতে পারতো। কিন্তু সেই বিষয়টা মিসিং ছিলো। তবে তার মানে এই না যে ছবিটা সামান্য বোরিং কোন দিক থেকে। ছবির দৃশ্যগুলো এতো সুন্দর ভাবে বানানো যে প্রত্যেকটা দৃশ্য দর্শক আগ্রহ্‌ ধরে রাখতে সক্ষম। অর্থাৎ ছবির মেকিং স্টাইল এক দম ফার্ষ্ট ক্লাস।
সবমিলিয়ে, ঢাকা এটাক খুবই সুনির্মিত একটি ছবি। যারা বাংলা সিনেমার নামে নাক সিটান কিংবা হাসাহাসি করেন তাদের মুখে এক ধরনের চপেটাঘাত হচ্ছে এই ছবি। ছবিটি অত্যন্ত বাস্তব সম্মত ভাবে, অত্যন্ত সুন্দর ভাবে বানিয়েছেন ছবির নির্মাতা দীপঙ্কর দীপন। হ্যা, অবশ্যই ছবির গল্প এবং চিত্রনাট্য একটু বেশীই সাদামাটা; তবে মেকিং এর দিক থেকে এ ছবি প্রায় নিঁখুত। যারা ভিন্ন ধারার, সুনির্মিত ছবিকে সমর্থন করছেন তাদের এ ছবি ডেফিনেটলি দেখা উচিত। এ ধরনের ভিন্ন ধারার, সুনির্মিত ছবিগুলো ব্যাবসায়িক ভাবে সফল হলেই আমাদের চলচ্চিত্র শিল্প ঘুরে দাঁড়াতে পারবে। তাই আসুন হলে গিয়ে ছবি দেখি এবং ভাল লাগলে অন্যকে হলে গিয়ে ছবি দেখতে উৎসাহিত করি।



সিনেমার প্রাথমিক গল্প সম্পর্কে ইতিমধ্যে অনেকেই হয়তো জানেন। সন্ত্রাসীদের বোমা বিস্ফোরণ নিয়ে একদল ফোর্সের উদ্যমী ও সাহসী তদন্ত এবং অভিযান নিয়েই মূলত সিনেমার গল্প।

লোকেশন, বোমা নিষ্ক্রিয়ন, পুলিশ প্রশাসনের একাডেমীক বিষয়গুলো বেশ মানানসয় ও কনভিন্সিং ছিল। আর অ্যাকশন-থ্রিলার সিনেমা বলে ইমোশন কম ছিল এমন নয়। সিনেমায় রোমান্স ও আবেগের উপস্থিতিও ছিল।
সিনেমার টেকনিক্যাল বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিত লিখতে পারছিনা কেননা আমি এই বিষয়ে পারদর্শী নয়। তবে টেকনিক্যাল সেক্টর গুলোতে যে বেশ দক্ষ ও প্রফেশনাল মানুষজন নিয়োগ দেয়া হয়েছে সেটা সিনেমার দেখার সময়েই টের পাওয়া যাবে। সাসপেন্সের দৃশ্য গুলোতে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক পার্ফেক্ট ছিল। পাশাপাশি গান হিসেবে অরিজিৎ এর গাওয়া “টুপ টাপ” শ্রুতিমধুর ও আদিতের গাওয়া “পথ যে ডাকে” গানটি সিনেমাতে সঠিকভাবেই ব্যবহার করা হয়েছে।

আরেকটি বিষয় হচ্ছে বাংলা সিনেমায় পুলিশের এত চমকপ্রদ প্রদর্শন সম্ভবত এই প্রথম দেখানো হয়েছে। পুলিশের নানাবিদ চৌকস ও ডিজিটাল কাজকর্মও সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। সিনেমাতে পুলিশ প্রশাসনের সরাসরি সম্পৃক্ততাও ছিল।

অভিনয় শিল্পীদের নিয়ে আলোচনা করতে গেলে প্রথমেই বলতে হয় সিনেমার ভিলেন চরিত্রে অভিনয় করা তাসকিন রহমানকে নিয়ে। একটি অ্যাকশন থ্রিলার সিনেমাকে এক্সসাইটেড করার পেছনে নেতিবাচক চরিত্র তথা খলনায়কের অনেক অবদান থাকে। সে হিসেবে তাসকিনের চাহনী, ডায়লগ এবং অভিব্যক্তি দুর্দান্ত। সাইকো ভিলেন চরিত্রে এর চেয়ে ব্যাটার অপশন আর কেউ আছে বলে আপাতত মনে হচ্ছেনা। ব্রিলিয়েন্ট!



একজন সহকারী পুলিশ কমিশনার এবং বোমা নিষ্ক্রিয় বিশেষজ্ঞ হিসেবে আরিফিন শুভ নিঃসন্দেহে সেরা ছিল। সম্পূর্ণ সিনেমাতে তার আচার আচরণ বেশ প্রফেশনাল পুলিশ অফিসারের মতোই মনে হয়েছে। চতুর ও দক্ষ পুলিশ অফিসার চরিত্রে শুভকে বেশ মানিয়েছে। বাংলা চলচ্চিত্রে বর্তমানে তার এমন অবস্থান সত্যি সে ডিজার্ব করে।
বিশেষ ম্যানশনযোগ্য এ বি এম সুমন। সোয়াট অফিসারের রোলে অসাধারণ অভিনয় করেছেন তিনি, বিশেষ করে সিনেমার শেষের দিকে তার এক্সপ্রেশন মুগ্ধকর ছিল। এ বি এম সুমনকে কাজে লাগাতে পারলে একজন বড় স্টার হওয়ার যোগ্যতা রাখে সে। সিনেমার সুমনের স্ত্রীর চরিত্রে “নওশাবা” পর্দায় অল্পক্ষণ থাকলেও ভাল অভিনয় করেছেন। আর শতাব্দী ওয়াদুদ ও শিপন বেশ ভাল ছিল। মাহিয়া মাহিকে নিয়ে বিশেষ কিছু বলার নেই।




সিনেমায় সিনিয়র অভিনেতাদের মধ্যে সৈয়দ হাসান ইমাম, আলমগীর এবং আফজাল হোসেনের ক্যামিও তথা অতিথি চরিত্র ছিল। অল্প সময়ে পর্দায় উপস্থিত থাকলেও পুলিশের বড় অফিসার হিসেবে তাদের বেশ মানিয়েছে বলা যায়। ক্যামিও হলেও ওজনদার চরিত্র ছিল। - লেখাঃ হাবিব রাহমান, রমিজ রেজা, মাহমুদুল মুন্না।



Search Terms:
dhaka attack full movie review
dhaka attack full movie download 
dhaka attack mobile hd movie song 
dhaka attack movie mp4 download 
dhaka attack cinema 3gp video song 
dhaka attack movie mkv song mp3 
dhaka attack full muvie hd watch online 
dhaka attack free daonlud youtube review
mahiya mahi arefin shuvo new movie
salman shah shakib khan new film


Dhaka Attack (Bengali: ঢাকা অ্যাটাক) is a Bangladeshi thriller drama film produced by Three Wheelers Films and Splash Multimedia Limited. It features Arifin Shuvoo, Mahiya Mahi and ABM Sumon in lead roles. It is directed by Dipankar Sengupta and written by Sunny Sanwar. The film will be distributed by Three Wheelers Films, Splash Multimedia and Q-Plex Communications.


manilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manilamanilamanilamanilamanila

Δημοσιεύθηκε στις 9 October 2017 | 11:53 pm


কক্সবাজার ভ্রমণের এ টু জেড

সারি সারি ঝাউবন, বালুর নরম বিছানা, সামনে বিশাল সমুদ্র। কক্সবাজার গেলে সকালে-বিকেলে সমুদ্রতীরে বেড়াতে মন চাইবে। নীল জলরাশি আর শোঁ শোঁ গর্জনের মনোমুগ্ধকর সমুদ্র সৈকতের নাম কক্সবাজার। ইংরেজ ক্যাপ্টেন মি. হেরাম কক্স (Captain Hiram Coxs)-এর নামানুসারে এ জায়গার নামকরণ হয় কক্সবাজার। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের দৈর্ঘ্য ১২০ কিলোমিটার। মুদ্রের তীর ঘেঁষে গড়ে উঠা সংরক্ষিত বনভূমি সমৃদ্ধ ৯৬ কিলোমিটার পাহাড়ের সারি এখানকার অন্যতম বিরল প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য বলে বিবেচিত। সমুদ্রতট ঘেঁষে গড়ে উঠেছে কটেজ, মোটেল এবং হোটেল রেস্তোরাঁ। অপরূপ সুন্দর বিশ্বের বৃহত্তম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার। মানুষের ভিড় এড়িয়ে নিরিবিলি ভ্রমণ যাদের পছন্দ, তাদের কক্সবাজার যেতে হবে বর্ষায়। এই ঋতুতে কক্সবাজার যেন বদলে যায় পুরোপুরি। সৈকতে পর্যটকের ভিড় থাকেনা,  আবার কম খরচেও বেড়ানো যায়। বাদল দিনের নির্জন সৈকতে বেড়াতে চাইলে দুতিন দিনের সময় নিয়ে ঘুরে আসতে পারেন পর্যটন শহর কক্সবাজার থেকে। মহেশখালী, কুতুবদিয়া, সোনাদিয়া, মাতার বাড়ি, শাহপরী, সেন্টমার্টিন, কক্সবাজারকে করেছে আরো আকর্ষণীয় ও দৃষ্টিনন্দন। এ জেলার উপর দিয়ে বয়ে গেছে মাতা মুহুরী, বাঁকখালী, রেজু, কুহেলিয়অ ও নাফ নদী। পর্যটন, বনজসম্পদ, মৎস্য, শুটকিমাছ, শামুক, ঝিনুক ও সিলিকাসমৃদ্ধ বালুর জন্য কক্সবাজারের অবস্থান তাই ভ্রমণবিলাসী পর্যটকদের কাছে সবার উপরে।

সমুদ্রে নামার আগে সতর্কতা ও অন্যান্য তথ্য:

সমুদ্রে নামার আগে অবশ্যই জোয়ার-ভাটার সময় জেনে নিন। এ সম্পর্কিত ইয়াছির লাইফ গার্ডের বেশ কয়েকটি সাইনবোর্ড ও পতাকা রয়েছে বিচের বিভিন্ন স্থানে। জোয়ারের সময় সমুদ্রে গোসলে নামা নিরাপদ। এ সময় তাই জোয়ারের সময় নির্দেশিত থাকে, পাশাপাশি সবুজ পতাকা ওড়ানো হয়।
ভাটার সময়ে সমুদ্রে স্নান বিপজ্জনক ভাটার টানে মুহূর্তেই হারিয়ে যেতে পারে যে কেউ।তাই এ সময় বিচ এলাকায় ভাটার সময় লেখাসহ লাল পতাকা ওড়ানো থাকলে সমুদ্রে নামা থেকে বিরত থাকুন। কোনোভাবেই দূরে যাবেন না। প্রয়োজেন পর্যটকদের নিরাপত্তায় নিয়োজিত ইয়াছির লাইফ গার্ডের সহায়তা নিন। ওদের জানিয়ে বিচে নামুন।

বিচ ফটোগ্রাফি:

কক্সবাজারে পর্যটন মৌসুমে শ দুয়েক বিচ ফটোগ্রাফার পর্যটকদের ছবি তুলে থাকে। প্রায় ঘন্টা খানেকের মধ্যেই এসব ছবি প্রিন্ট করে নেগেটিভসহ পর্যটকদের হাতে পৌঁছানোর ব্যবস্থা রয়েছে। লাল পোশাক পরা এসব বিচ ফটোগ্রাফারদের প্রত্যেকের রয়েছে একটি করে আইডি কার্ড।বেশ কয়েকটি স্টুডিও এ কাজের সঙ্গে জড়িত। সরকারি রেট অনুযায়ী ফোরআর সাইজের ছবি ৩০টাকা । এ সম্পর্কিত সাইনবোর্ড মেইন বিচে দেখতে পাওয়া যায়। এসব বিচ ফটোগ্রাফারদের কাছ থেকে ছবি তোলার আগে আইডি কার্ড দেখে নেওয়া ভালো।

স্পিডবোট:

বিচে বেশ কয়েকটি স্পিডবোট চলে। মেইন বিচ থেকে এগুলো চলাচল করে লাবণী পয়েন্ট পর্যন্ত। ভাড়া এক রাউন্ড ১০০টাকা। এছাড়া খোলা স্পিডবোটের সাহায্যে চলে লাইফ বোট জনপ্রতি ভাড়া ২৫০ টাকা।

বিচ বাইক: তিন চাকার বেশ কয়েকটি বিচে চলার উপযোগী বাইক কক্সবাজার সাগর সৈকতে চলাচল করে। প্রায় ১ কিলোমিটার দূরত্বে এসব বাইক রাউন্ড প্রতি পঞ্চাশ টাকা করে পর্যটকদের প্রদান করতে হয়।

হিমছড়ি ও ইনানী বিচ ভ্রমন: 

কক্সবাজারের ১০ থেকে ২২ কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে রয়েছে দুটি আকর্ষণীয় পর্যটন স্থান। একটি হলো হিমছড়ি পিকনিক স্পট এবং অন্যটি হলো ইনানী। এখানকার ঝর্ণা, ঝাউবন, পাহাড় আর বনানীর সৌন্দর্য্য চিত্তাকর্ষক। কক্সবাজার সমুদ্র থেকে মাত্র ২২ কিলোমিটার দূরে রয়েছে অন্যতম আকর্ষণীয় সমুদ্র সৈকত ইনানী সমুদ্র সৈকত। আর এই সমুদ্র সৈকতে যাওয়ার পথে মাত্র ১২ কিলোমিটার গেলেই পাওয়া যাবে আরেক দর্শনীয় পর্যটন স্থান হিমছড়ি।
কলাতলী থেকে জিপে চড়ে যেতে পারেন এ জায়গা দুটিতে। খুব সকালে গেলে জায়গা দুটি ঘুরে আবার দুপুরের মধ্যেই ফিরতে পারবেন কক্সবাজার শহরে। কক্সবাজার থেকে জিপে যেতে পারবেন এখানে। রিজার্ভ নিলে খরচ পড়বে দেড় থেকে আড়াইহাজার টাকা। আর লোকাল জিপে গেলে এ জায়গা দুটি ঘুরে আসতে জনপ্রতি খরচ হবে দুই আড়াইশ টাকা।

রামু বৌদ্ধ তীর্থস্থান:

কক্সবাজারের সন্নিকটেই বৌদ্ধ তীর্থস্থান রামু। এখানে রয়েছে অনেকগুলো মন্দির ও প্যাগোডা। ছড়িয়ে আছে বৌদ্ধ ধর্মের নানা নিদর্শন। রামু বুদ্ধের অনেক স্মৃতিকে সযত্নে ধারণ করেছে। এখানকার রাবার চাষ প্রকল্পটি দর্শনীয়।

সোনাদিয়া:

কক্সাবাজারের বিপরীতে বঙ্গোপসাগরের বুকে একটি আকর্ষণীয় দ্বীপের নাম সোনাদিয়া। এটি অতিথি পাখিদের স্বর্গরাজ্য। শীতকালে পৃথিবীর নানা স্থান থেকে উড়ে আসে অতিথি পাখিরা। ট্রলার কিংবা ইঞ্জিনচালিত নৌকায় সেখানে যেতে দুই ঘণ্টা সময় লাগে। সোনাদিয়া দ্বীপের আয়তন ৪৬৩ কিলোমিটার। এখানে ঝিনুক মুক্তা আর শামুকের ছড়াছড়ি। সকালে গিয়ে বিকেলেই ফিরে আসা যায় কক্সবাজার।

মহেশখালী দ্বীপ:

কক্সবাজারের উত্তর-পশ্চিমে সমুদ্র মাঝে রয়েছে মহেশখালী দ্বীপ। কক্সবাজার শহরের কস্তরীঘাট থেকে ইঞ্জিনচালিত নৌকা ট্রলার, লঞ্চ ও স্পিড বোটে মহেশখালীতে যাওয়া যায়। এই দ্বীপের ছোট পাহাড় ও অরণ্যে পাখির কলকাকলি, বন্যপ্রাণীর বিচরণ আর পাহাড়ের চূড়ায় আদিনাথ মন্দিরের শোভা দেখে মুগ্ধ হতে হয়। মহেশখালীর প্রধান আকর্ষণ এই মন্দির বঙ্গোপসাগরের মোহনার সন্নিকটে একটি পাহাড়ের উপর অবস্থিত। কয়েকশ বছর আগে তৈরি এই মন্দিরে উঠতে ৬৯টি সিঁড়ি অতিক্রম করতে হয়। এটিকে শিব মন্দিরও বলা হয়। প্রতিবছর শিবরাত্রির পর মন্দিরকে কেন্দ্র করে মেলা বসে। এই মেলা সাত-আট দিন ধরে চলে। মহেশখালীর পাহাড় আর অরণ্যে রয়েছে নানা বন্য প্রাণী। পাখির কলকাকলিতে মুখরিত থাকে এই দ্বীপ। দ্বীপের জেলেপাড়ায় গেলে দেখা যাবে শুটকি মাছের প্রাচুর্য। মহেশখালী মিষ্টি পান ও সুপারীর জন্যও বিখ্যাত। সাগরপাড়ে রয়েছে অসংখ্য শামুক ও ঝিনুক। নিকটস্থ দোকানে বিক্রি হয় ঝিনুক ও শামুকের মালা।

টেকনাফ:

কক্সবাজার থেকে ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণে বাংলাদেশ-মায়ানমার (বার্মা) সীমান্তে আরেকটি আকর্ষণীয় স্থান টেকনাফ। টেকনাফ বাংলাদেশ-বার্মা সীমান্তে নাফ নদীর তীরে অবস্থিত একটি ছোট্ট শহর। কক্সবাজার থেকে বাস কিংবা কোস্টারে টেকনাফ যাওয়া যায়। নাফ নদীর তীরে দাঁড়ালে দেখা যায় ওপারের মায়ানমারের মংড়ু শহর। টেকনাফে মগ ও চাকমা উপজাতিদের ফল-ফলাদি বিক্রি করতে দেখা যায়। বাড়িঘর সবকিছুতে বর্মী প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। যাতায়াত পথে চোখে পড়বে নয়নাভিরাম দৃশ্য। নাফ নদীর পাড় দিয়ে রাস্তা। পাশে পাহাড়, ঝর্ণা এবং পাহাড়ের মাথায় অরণ্য। থাকার জন্য এখানে রয়েছে ডাকবাংলো এবং আবাসিক হোটেল।

সেন্ট মার্টিনস:

টেকনাফ থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দক্ষিণে সমুদ্রের বুকে জেগে উঠা প্রবাল দ্বীপ সেন্ট মার্টিনস। এই প্রবাল দ্বীপে জাহাজ এবং ট্রলারে যাওয়া যায়। এই দ্বীপের স্থানীয় নাম নারকেল জিঞ্জিরা। টেকনাফ থেকে সেন্ট মার্টিনসে যেতে সমুদ্রের উত্তাল তরঙ্গমালা পেরিয়ে যাওয়া রীতিমত রোমাঞ্চকর। এই দ্বীপে প্রচুর নারকেল গাছ দেখতে পাওয়া যায়। একদা আরবীয় বণিকরা ব্যবসাবাণিজ্য করতে এসে এখানে বিশ্রাম নিতো। বাংলা, আরাকান ও বার্মা ইংরেজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির অধীনে চলে আসার পর জনৈক ইংরেজ মি মার্টিনসের নামানুসারে এই দ্বীপের নাম হয় সেন্ট মার্টিনস। এখানে প্রচুর কেয়া গাছ চোখে পড়ে। বসবাসরত কয়েক হাজার লোকের প্রধান জীবিকা মৎস্য শিকার। এই দ্বীপটির চতুর্দিকে বিস্তীর্ণ সমুদ্র সৈকত। দ্বীপটির আয়তন ৯ বর্গ কিলোমিটার। সুউচ্চ টাওয়ারের চুড়ায় রয়েছে সার্চ লাইট। দ্বীপের যেদিকে যাওয়া যায় চোখে পড়বে ছোট বড় অসংখ্য প্রবাল। এখানে রয়েছে শামুক, ঝিনুক, চুনাপাথর, শৈবাল আর মুক্তার প্রাচুর্য। তাল ও নারকেল গাছ ছাড়াও প্রবাল দ্বীপে রয়েছে আরও অন্যান্য উদ্ভিদ।
এখানকার নির্জন সমুদ্র সৈকত, জেলে নৌকার ব্যস্ত আনাগোনা, ঢেউয়ের উঠানামার মধ্যে উদ্ভাসিত প্রবাল রাজ্য পর্যটকদের মুগ্ধ করে। সৈকত বরাবর চোখে পড়ে জেলেদের বস্তি। সকাল-সন্ধ্যা মাছ ধরার ব্যস্ততা। দূর সমুদ্রে ভাসে মাছ ধরার ট্রলার, পালতোলা জেলে নৌকা। দমকা হাওয়ায় নারকেল জিঞ্জিরার নারকেল গাছের শাখায় শোঁ-শোঁ করে শব্দ হয়। অনেক সময় সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস আর ঝড়ে ধ্বংস হয়েছে এ জনপদ, তবুও তার সৌন্দর্য্য অমলিন।

যাতায়াত ও ভাড়া:

যারা ঢাকা থেকে সরাসরি কক্সবাজার যেতে চান তারা ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে কক্সবাজার অথবা সরাসির বাসে কক্সবাজারে যেতে পারে। ঢাকার ফকিরাপুল, আরামবাগ, মতিঝিলসহ বেশ কয়েকটি স্থানে সরাসরি কক্সবাজারের উদ্দেশে বাস ছেড়ে যায়।এসি ও নন এসি, ডিলাক্স ও সাধারণ এসব সরাসরি বাস পরিবহনের ভাড়া পড়বে ৪০০-১২০০ টাকা পর্যন্ত। সোহাগ, গ্রীন লাইন ছাড়াও ঈগল ও অন্যান্য পরিবহনের বাস চলাচল করে। এছাড়া ঢাকা থেকে ট্রেনে বা বাসে প্রথমে চট্টগ্রাম এবং পরে চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি কক্সবাজারে যাওয়া যায়। ঢাকার কমলাপুর থেকে প্রতিদিন ট্রেন বা বাস ছেড়ে যায়। তবে টিকেট বুকিং আগেভাগেই করে রাখা ভালো।

কক্সবাজারের আবাসিক ব্যবস্থা:

বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ পর্যটন কেন্দ্র কক্সবাজার। বিশ্বের সর্ববৃহৎ ও দর্শনীয় বিচ কক্সবাজারে রয়েছে আন্তর্জাতিকমানের বেশ কয়েকটি হোটেল, মোটেল ও রিসোর্ট। এছাড়া সরকারি ও ব্যক্তিগত ব্যবস্থাপনায় গড়ে উঠেছে ছোট বড় বিভিন্ন মানের অনেক রিসোর্ট, হোটেল ও বোর্ডিং হাউস।
সর্বনিম্ন ২০০টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১০,০০০ টাকায় কক্সবাজারে যাতযাপন করা যায়। হোটেল সিগালের ভাড়া ২,২০০-৭,০০০ টাকা। হোটেল শৈবালের ভাড়া ১,০০০-৩,০০০ টাকা। হোটেল লাবণীর ভাড়া ৬০০-৩,০০০ টাকা। উপলের ভাড়া ১০০০-১৫০০ টাকা। সি ক্রাউনের ভাড়া ২০০-৩,০০০ টাকা। জিয়া গেস্ট হল ৩০০-২,০০০ টাকা।
ভাড়া অন্যান্য হোটেল রেস্টহাউসের ভাড়া প্রায়ই নির্ধারিত। তবে কক্সবাজার ভ্রমণের পূর্বে ফোনে যোগাযোগ করে বুকিংমানিং পাঠিয়ে আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করা ভালো। সরাসরি গিয়েও কথা বলে রুম ভাড়া নেওয়া যায়।

খাওয়াদাওয়া ও রেস্টুরেন্ট:

প্রায় প্রতিটি আবাসিক হোটেল বা হোটেলের সন্নিকটে রেস্টুরেন্ট বা খাবার হোটেল রয়েছে। কক্সবাজার ভ্রমণে গিয়ে পর্যটকদের বেশি আকর্ষণ থাকে সাগরের বিভিন্ন মাছের মেন্যুর প্রতি। বিশেষ করে চিংড়ি, রূপচাঁদা, লাইট্যা, ছুরি মাছসহ মজাদার শুটকি মাছের ভর্তার প্রতিই পর্যটকদের আকর্ষণ বেশি থাকে।
খাবারের মেন্যু অনুযায়ী একে রেস্টুরেন্টে একেক ধরনের মূল্য তালিকা দেখা যায়। তবে বর্তমানে সরকার নির্ধারিত কিছু কিছু তালিকা ভোজন রসিকদের আশ্বস্ত করেছে। মোটামুটি ১০-৫০০ টাকার মধ্যে সাধ ও সাধ্য অনুযায়ী মজাদার খাবার গ্রহণ করতে পারবেন। তবে খাবার গ্রহণের পূর্বে খাবারের নাম, মূল্য এবং তৈরির সময় সম্পর্কে জেনে নিন। প্রয়োজনে খাদ্যের তালিকা ও মূল্য টুকে রাখুন। তালিকা সঙ্গে মিলিয়ে বিল প্রদান করুন।

সেন্টমার্টিন ভ্রমনের প্রয়োজনীয় তথ্য:

আকাশের নীল আর সমুদ্রের নীল সেখানে মিলেমিশে একাকার, তীরে বাঁধা নৌকা, নান্দনিক নারিকেল বৃক্ষের সারি আর ঢেউয়ের ছন্দে মৃদু পবনের কোমল স্পর্শ এটি বাংলাদেশের সেন্টমার্টিন প্রবাল দ্বীপের সৌন্দর্য বর্ণনার ক্ষুদ্র প্রয়াস। বালি, পাথর, প্রবাল কিংবা জীব বৈচিত্র্যের সমন্বয়ে জ্ঞান আর ভ্রমণ পিপাসু মানুষের জন্য অনুপম অবকাশ কেন্দ্র সেন্টমার্টিন। স্বচ্ছ পানিতে জেলি ফিশ, হরেক রকমের সামুদ্রিক মাছ, কচ্ছপ, প্রবাল বিশ্ব রহস্যের জীবন্ত পাঠশালায় পরিণত করেছে সেন্টমার্টিন ও তৎসংলগ্ন এলাকাকে। এটি বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ। কক্সবাজার জেলা শহর থেকে ১২০ কিলোমিটার দূরে সাগর বক্ষের একটি ক্ষুদ্র দ্বীপ সেন্টমার্টিন। চারদিকে শুধু পানি আর পানি। আয়তন ১৭ বর্গ কিলোমিটার। টেকনাফ থেকে ট্রলারে লঞ্চে কিংবা জাহাজে যেতে লাগে দুই থেকে সোয়া দুই ঘণ্টা। এর জনসংখ্যা প্রায় সাড়ে ছয় হাজার। নারিকেল, পেঁয়াজ, মরিচ, টমেটো ধান এই দ্বীপের প্রধান কৃষিজাত পণ্য। আর অধিবাসীদের প্রায় সবারই পেশা মৎস্য শিকার। তবে ইদানীং পর্যটন শিল্পের বিকাশের কারণে অনেকেই রেস্টুরেন্ট, আবাসিক হোটেল কিংবা গ্রোসারি শপের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করছে। সেন্টমার্টিন দ্বীপের মানুষ নিতান্ত সহজ-সরল, তাদের উষ্ণ আতিথেয়তা পর্যটকদের প্রধান আকর্ষণ। স্বল্প খরচে পর্যটকদের জন্য থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে এখানে।

সেন্টমার্টিন যেভাবে যাবেন:

বাংলাদেশের যে কোনও স্থান থেকে সেন্টমার্টিন যাওয়ার জন্য আপনাকে প্রথমে যেতে হবে কক্সবাজার। কক্সবাজার থেকে প্রথমে জিপে চড়ে টেকনাফ, টেকনাফ থেকে সি-ট্রাক, জাহাজ কিংবা ট্রলারে চড়ে পৌঁছাবেন সেন্টমার্টিনে। প্রতিদিন ঢাকা থেকে সরাসরি কক্সবাজারের উদ্দেশে ছেড়ে যায় দূরপাল্লার বেশ কিছু গাড়ি। বাসে ভাড়া লাগবে এসি ৮০০ – ১২০০ এবং নন-এসি ৪০০-৭০০ টাকা। কক্সবাজার তো গেলেন তারপর বাসে ৩০-৫০ টাকা, ট্যাক্সিতে ৪০-৬০ টাকা অথবা রিজার্ভ মাইক্রোবাসে টেকনাফ যেতে ভাড়া লাগবে ৫০০-১০০০ টাকা (৮-১০ সিট)। প্রতিদিন সকাল থেকে কক্সবাজার-টেকনাফ রুটে চলাচল করে এসব গাড়ি। টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনে প্রতিদিন সকাল থেকে আসা-যাওয়া করে সি-ট্রাক, কেয়ারি সিন্দাবাদ এবং নাফসি হাজাজ। চমৎকার এসব জাহাজের পাশাপাশি ট্রলার ও চলাচল করে এই সমুদ্র রুটে। পছন্দসই বাহনে যেতে পারেন। তবে নিরাপদ জলযান হিসেবে কেয়ারি সিন্দাবাদ ও নাফসি জাহাজই নির্ভরযোগ্য। এসব জাহাজে টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন যেতে সময় লাগে দুই ঘণ্টা। অন্যদিকে প্রতিদিনই বিকাল ৩টায় এসব সাহাজ সেন্টমার্টিন ছেড়ে আসে। শীত মৌসুমে সমুদ্র শান্ত থাকে এবং গ্রীষ্ম-বর্ষা মৌসুমে সমুদ্র উত্তাল থাকে, তখন চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ।

কোথায় খাবেন: 

যারা স্বল্প সময়ের জন্য সেন্টমার্টিনে যেতে চান অর্থাৎ সন্ধ্যার আগে ফিরতে চান তাদের অবশ্যই ৩টার আগে ফিরতি জাহাজে আরোহণ করতে হবে। ছোট এই দ্বীপ এলাকা ঘুরে দেখতে ৩ ঘণ্টা সময়ই যথেষ্ট। তবে প্রধান দ্বীপ ও ছেড়া দ্বীপে যারা যেতে চান তাদের হাতে বেশ খানিকটা সময় থাকা উচিত। পর্যটকদের খাবারের জন্য রয়েছে এখানে বেশ কিছু হোটেল ও রেস্তোরাঁ। তার কয়েকটি হল কেয়ারি মারজান রেস্তোরাঁ, বিচ পয়েন্ট, । হোটেল আল্লার দান, বাজার বিচ। এছাড়া আসাম হোটেল, সি বিচ, সেন্টমার্টিন, কুমিল্লা রেস্টুরেন্ট, রিয়েল রেস্তোরাঁ, হাজী সেলিম পার্ক, সেন্টমার্টিন টুরিস্ট পার্ক, হোটেল সাদেক ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

থাকবেন কোথায়:

সেন্টমার্টিনে থাকার জন্য বেশ উন্নতমানের কয়েকটি হোটেল ও কটেজ রয়েছে। ১৬টি হোটেলসহ বেশ ক’টি কটেজে প্রতিরাতে কমপক্ষে পাচশ জন পর্যটক থাকতে পারেন। অনেক বাড়িতেও আছে পর্যটকদের জন্য থাকার ব্যবস্থা। ভাড়া পড়বে ২০০-২৫০ টাকা, শীত মৌসুমে চাপ বেশি বিধায় ইচ্ছামতো ভাড়া নেয় মালিকরা। এবার জেনে নিন কয়েকটি হোটেল-মোটেলের নাম ও

হোটেলের ঠিকানা:

সীমানা পেরিয়ে : ১০টি রুমের প্রতি রুমে ৪ জন থাকার ব্যবস্থা আছে। ভাড়া রুম প্রতি ৭০০-৮০০ টাকা, তাঁবুতে ৪ জন করে ৩০০ টাকা। খাবার খরচ জনপ্রতি ৫০-৭০ টাকা। যোগাযোগ জাহাঙ্গীর ।

প্রিন্স হেভেন:

রুম সংখ্যা ১৮টি, ডাবল রুমের ভাড়া ৬০০-৮০০ টাকা। একসঙ্গে ৪ জনের থাকার ব্যবস্থা। সিঙ্গেল রুমে থাকার ব্যবস্থা দু’জনের ভাড়া ৪০০-৫০০ টাকা। যোগাযোগ : ০১৮৯৩০৮০৫৮। ব্ল–মেরিন রিসোর্ট-৩৪টি অতিথি রুমসহ ১৮টি ডাবল বেডরুম। ট্রিপল রেডরুম ১৩, ছয়জনের বেডরুম ৫টি এবং কটেজ ২টি। ভাড়া ডাবল ১০০০ টাকা, ট্রিপল ১২০০ টাকা, ৬ বেড ১৫০০ টাকা, ৫ বেডের কটেজ ২৫০০ টাকা।

সমুদ্র বিলাস (লেখক হুমায়ূন আহমেদের বাড়ি):

৪ রুমের এই বাড়িতে প্রতি রুমের ভাড়া ৫০০-১০০০ টাকা।
আরও আছে বিচ ক্যাম্প ; হোটেল সাগর পাড় এবং রিয়াদ গেস্ট হাউজ । আছে হোটেল স্বপ্ন প্রবাল, শ্রাবণ বিলাস, সরকারি ব্যবস্থাপনায় মেরিন পার্ক। পর্যটন মৌসুমে প্রায় প্রতি বাড়িতে আবাসিক সুবিধা পাওয়া যায়। সরাসরি এসব বাড়িতে গিয়ে আলাপ করে থাকা যায়

বি দ্রঃ ভাড়ার কিছুটা পার্থক্য হতে পারে।

Δημοσιεύθηκε στις 4 October 2017 | 3:02 am


মুখে 'দাড়ি' বা মাথায় নতুন চুল গজাতে কীভাবে পেঁয়াজের রস ব্যবহার করবেন

মুখে দাড়ি বা মাথায় নতুন চুল গজাতে কীভাবে পেঁয়াজের রস ব্যবহার করবেনঃ চুলের যত্নে আদিকাল থেকে পেঁয়াজের রস ব্যবহার হয়ে আসছে। নতুন চুল গজানো থেকে শুরু করে চুল পড়া রোধ করতে ব্যবহৃত হয় এই পেঁয়াজের রস।  আর এটি ক্লিনিকালই পরীক্ষিত যে চুল ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে পেঁয়াজের রস দারুণ কার্যকর। আমরা জানি, পেঁয়াজের রস রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে। কিন্তু আমরা অনেকেই জানি না কীভাবে মুখে নতুন দাড়ি গজাতে বা মাথায় চুল গজাতে পেঁয়াজের রস ব্যবহার করব। তো আসুন আজকের এই ফিচারে জেনে নেয়া যাক মুখে দাড়ি বা মাথায় নতুন চুল গজাতে কীভাবে পেঁয়াজের রস ব্যবহার করবেন।

শুধু পেঁয়াজের রস

একটি পেঁয়াজ কুচি কুচি করে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে রস বের করে নিন অথবা ভালো করে পিষে ছাকনি দিয়ে ছেকে রস বের করুন। যে স্থানে চুল পড়ে কমে গেছে বা যেখানে নতুন চুল গজাতে চান সেখানটায় পেঁয়াজের রস  লাগিয়ে কিছুক্ষন ম্যাসাজ করতে হবে। এটি ১৫-৩০ মিনিটে রাখুন। তারপর পানি দিয়ে দুয়ে নিন। সপ্তাহে ৩ বার এটি ব্যবহার করুন। দু-তিন মাসের মধ্যে আপনি পরিবর্তন দেখতে পাবেন।

পেঁয়াজের রসের সাথে তেল

এক টেবিলচামচ পেঁয়াজের রসের সাথে পরিমান মত নারকেলের তেল পরিমান্মত অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন। সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার এটি আপানার চুলে ব্যবহার করুন। আপনি যদি শুষ্ক মাথার ত্বকের অধিকারী হয়ে থাকেন তবে এটি খুব ভাল ফল দিবে। আর মুখে দাড়ি উটানোর জন্য পরিমান মত পেঁয়াজের রসের সাথে পরিমান মত অলিভ অইল অথবা ক্যাস্টর অয়েল মিশিয়ে মুখে ব্যবহার করতে হবে। প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে ব্যবহারে ভালো ফল পাওয়া যায়


পেঁয়াজের রস চুল বা দাড়ি জন্য কেন উপকারী

চুল প্রোটিন দিয়ে তৈরি, যা কেরাটিন থেকে শক্তি পায়। সালফারের অভাবে চুল পড়া বেড়ে যায়। পেঁয়াজের রসে আছে প্রচুর পরিমণে সালফার। ত্বকের যে স্থানে পেঁয়াজের রস লাগানো হয় সেখানে রক্ত চলাচল বৃদ্ধি করে থাকে। এমনকি সালফার আপানার ত্বকের কোলাজেন উৎপাদন বৃদ্ধি করে নতুন দাড়ি চুল গজাতে সাহায্য করে। এতে অ্যান্টি ব্যাক্টেরিয়াল উপাদান আছে যা বিভিন্ন রোগ জীবাণু হতে রক্ষা করে। এটি সব ধরণের দাড়ী চুলের অধিকারীরাই ব্যবহার করতে পারেন।

আরো দেখুনঃ 

দাড়ি গজানোর প্রাকৃতিক উপায়
বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দর ১০টি জায়গা
বাংলাদেশের আমাজন রাতারগুল
manilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manilamanilamanilamanilamanila rajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja/contact/ rajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja/contact/ rajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja/contact/ rajarajarajarajarajarajaraja/contact/ rajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja/contact/ rajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja/contact/ rajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja/contact/ rajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja/contact/ rajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja/contact/ rajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja/contact/ rajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajarajaraja

Δημοσιεύθηκε στις 1 October 2017 | 10:55 pm


পায়ের একটি 'নখকে' দ্রুত কিভাবে বড় হতে সাহায্য করবেন

পায়ের নখের সমস্যা

কোন এক কারনে আপনি আপনার পায়ের একটি নখ হারিয়েছেন, এবং আপনি এটি যত দ্রুত সম্ভব বৃদ্ধি বা বড় করতে চান। তাহলে কি করবেন? হ্যা, পায়ের একটি নখকে দ্রুত কিভাবে বড় হতে সাহায্য করবেন আজ সে বিষয়ই পরামর্শ দেয়া হবে।

জনপ্রিয় একটি স্বাস্থবিষয়ক ওয়েবসাইট এর মতে আপনাকে যা করতে হবে সেটি হচ্ছে, আপনা্র পায়ের নখ যতটুকু সম্ভব উন্মুক্ত রাখতে হবে এবং ময়শ্চারাইজিং রক্ষা করে চলতে হবে। 

এছাড়া, খুব সহজেই আপনি আপনার পায়ের নখ দ্রুত গজাতে ব্যবহার করতে পারেন জলপাই তেল (অলিভ অয়েল), কমলার রস, সবুজ চা, এবং অন্যান্য ময়শ্চারাইজ জাতীয় জিনিস। 

এসব ময়শ্চারাইজ জাতীয় জিনিস দিয়ে আপনার পায়ের আঙ্গুলের ময়শ্চারাইজ রক্ষা করে তারাতারি বড় করতে পারেন আপনার পায়ের একটি নখকে।

নখ চুল বৃদ্ধিতে ঘুম খুবি সহায়তা করে। সঠিক সময়ে পরিমান মত প্রতিদিন ঘুমাতে হবে। যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল স্লিপ ফাউন্ডেশন বা এনএসএফ একজন তরুণ বা প্রাপ্তবয়ষ্ককে প্রতিদিন ৬-৯ ঘণ্টার ঘুমানোর জন্য পরামর্শ দিয়েছে।

পায়ের বা হাতে নখ দ্রুত বড় লম্বা করতে রাতে ঘুমানোর আগে ভাল করে ধুয়ে ময়শ্চারাইজ জাতীয় জিনিস যেমন, নারকেল তৈল বা অলিভ অয়েল লাগিয়ে নিন। 

এছাড়া প্রমাণ আছে যে বায়োটিন চুল ও নখের বৃদ্ধি দ্রুত বাড়াতে সাহায্য করে। তবে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শে প্রতিদিন প্রয়োজনীয় পরিমাণ বায়োটিন গ্রহন করতে হবে।

ঘুরে আসুনঃ সিলেটের সবচেয়ে সুন্দর প্রাকৃতিক ১০টি জায়গা
manilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanilamanila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manila manilamanilamanilamanilamanila

Δημοσιεύθηκε στις 29 September 2017 | 2:22 pm


বাংলাদেশের আমাজন রাতারগুল ভ্রমণের জন্য জেনে নিন কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য

বাংলাদেশের আমাজন রাতারগুল ভ্রমণের জন্য জেনে নিন কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য

সারা পৃথিবীতে স্বাদুপানির জলাবন বা ফ্রেশওয়াটার সোয়াম্প ফরেস্ট আছে মাত্র ২২টি। ভারতীয় উপমহাদেশ আছে এর দুইটি, একটা শ্রীলংকায়, আরেকটি বাংলাদেশে যা সিলেটের গোয়াইনঘাটে অবস্থিত। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যকে কাছ থেকে দেখতে ঘুরে আসতে পারেন এই রাতারগুল। খরচ খবই কম, মাত্র ৭০০-১৫০০ টাকার মধ্যেই আপনি ঢাকা থেকে ঘুরে আসতে পারবেন সেখান থেকে।


অবস্থান

সিলেট শহর থেকে মাত্র ২১ কিলোমিটার দূরে এই রাতারগুল জলাবন। সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের গুয়াইন নদীর দক্ষিণে এর অবস্থান। প্রায় ৩১০ একর জমির ভূমির ওপর জলের মধ্যে ভেসে থাকা সবুজ বৃক্ষ, তার মাঝ দিয়ে নৌকায় করে সারা রাতারগুলে ঘুরে বেড়ানোর যাবে মাত্র এক থেকে ২ ঘন্টায়। চাইলে আরো বেশি সময় কাটাতে পারেন আপনি। বন বিভাগের তথ্যমতে, বনের আয়তন ৩ হাজার ৩শ ২৫ দশমিক ৬১ একর। ১৯৭৩ সালে বনের ৫০৪ একর বনভূমিকে বন্য প্রাণীর অভয়ারণ্য ঘোষণা করা হয়। স্থানীয় মানুষজনের কাছে এইটা “সুন্দরবন” নামেই বেশি পরিচিত।


যা দেখা যাবে


অদ্ভুত এক জলের রাজ্য। কোনো গাছের কোমর পর্যন্ত ডুবে আছে পানিতে। একটু ছোট যেগুলো, সেগুলো আবার শরীরের অর্ধেকটাই ডুবে থাকে জলে। ঘন হয়ে জন্মানো গাছপালার কারণে কেমন যেন আলো-আধারির এক মাদকতাময় খেলা। বনের মাঝ দিয়ে চলতে গেলে ভ্রমণ পিসাসুদের জড়িয়ে ধরবে নানা ধরনের গাছপালা। বৈশিষ্ট্যে এ বনের সাথে কিছু মিল রয়েছে দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের আমাজনের। ডিঙিতে চড়ে বনের ভিতর ঘুরতে ঘুরতে দেখা যাবে প্রকৃতির রূপসুধা। জলমগ্ন বলে এই বনে সাঁপের আবাসটাই বেশি, তবে ভাগ্য ভালো হলে দেখা হয়ে যেতে পারে দু-একটা বানরের সঙ্গে। তাছাড়া চোখে পরার মত বনে সাদা বক, কানা বক, মাছরাঙ্গা পাখি, টিয়া পাখি, বুলবুলি পাখি, পানকৌড়ি পাখি, ঢুপি পাখি, ঘুঘু পাখি, চিলসহ নানা জাতের পাখিতো আছেই। বনের ভেতর দিয়ে বয়ে যাওয়া এই রাতারগুলে চলে পাখির ‘ডুবো খেলা’। বনজুড়ে চড়ে বেড়ায় নানা প্রজাতির বন্যপ্রাণী। হাওর আর নদী বেষ্টিত অপূর্ব সুন্দর বনের দক্ষিণ পাশে সবুজের চাদরে আচ্ছাদিত জালি ও মূর্তা বেত বাগান। এর পেছনেই মাথা উঁচু করে আছে সারি সারি জারুল-হিজল-কড়চ।গাছের মধ্যে করচই বেশি। হিজলে ফল ধরে আছে শয়ে শয়ে। বটও চোখে পড়বে মাঝেমধ্যে।  তবে রাতারগুলের বেশ বড় একটা অংশে বাণিজ্যিকভাবে মুর্তা লাগিয়েছে বন বিভাগ। মুর্তা দিয়ে শীতল পাটি হয়। মুর্তা বেশি আছে নদীর উল্টো পাশে। ওদিকে শিমুল বিল হাওর আর নেওয়া বিল হাওর নামে দুটো বড় হাওর আছে। বড়ই অদ্ভুত এই জলের রাজ্য। কোথাও চোখে পড়বে মাছ ধরার জাল পেতেছে জেলেরা। ঘন হয়ে জন্মানো গাছপালার কারণে কেমন অন্ধকার লাগবে পুরো বনটা। মাঝেমধ্যেই গাছের ডালপালা আটকে দিবে পথ। হাত দিয়ে ওগুলো সরিয়ে তৈরি করতে হবে পথ। চলতে হবে খুব সাবধানে।


কিভাবে যাবেন রাতারগুল

প্রথম উপায় - রাতারগুল যদিও গোয়াইনঘাট উপজেলায় কিন্তু এটি সিলেট শহরের বেশ কাছাকাছি। এয়ারপোর্ট রোড ধরে এগিয়ে সিলেট- কোম্পানীগঞ্জ সড়কের ধুপাগুল পয়েন্ট থেকে ধুপাগুল- হরিপুর সড়ক ধরে একটু গেলেই মোটরঘাট। মোটরঘাট থেকে ছোট নৌকা নিয়ে বনের ভেতর ঢুকা যায়। এ ছাড়া মোটরঘাটের বদলে আরেকটু সামনে এসে রামনগর বাজার থেকে হাতের ডান দিকে চলে যাওয়া যায় রাতারগুল গ্রামে। গ্রামের ভেতর থেকে ও নৌকা নিয়ে গ্রামে ঢুকা যায়। এই গ্রামের মানুষেরা বেশ অতিথিপরায়ন। ফেরার সময় ধুপাগুলের দিকে না গিয়ে বিপরীতে হরিপুর চলে গেলে সিলেট-জাফলং মহাসড়ক। 

দ্বিতীয় উপায় - সিলেটের বন্দর বাজার পয়েন্ট থেকে সিএনজি নিয়ে মটরঘাট (সাহেব বাজার হয়ে) পৌঁছাতে হবে, এরপর মটরঘাট থেকে সরাসরি ডিঙ্গি নৌকা নিয়ে বনে চলে যাওয়া যায়। 


তৃতীয় উপায়– সিলেট থেকে জাফলং-তামাবিল রোডে সারীঘাট হয়ে সরাসরি গোয়াইনঘাট যেতে পারেন। এরপর গোয়াইনঘাট থেকে রাতারগুল বিট অফিসে আসবার জন্য ট্রলার ভাড়া করতে হবে।  বিট অফিসে নেমে ডিঙ্গি নৌকা নিয়ে বনে ঢুকতে হবে।



সতর্কতা

নৌকায় করে ঘোরার সময় পানিতে হাত না দেওয়াই ভালো কারণ জোকসহ বিভিন্ন পোকামাকড় তো আছেই, বিষাক্ত সাপও পানিতে বা গাছে দেখতে পাওয়া যায় প্রায়। আর যারা সাঁতার জানেন না, সঙ্গে লাইফ জ্যাকেট রাখতে পারেন। তবে বনের পরিবেশ নষ্ট করবেন না। পলিথিন, বোতল, চিপস, বিস্কুটের প্যাকেট ইত্যাদি দয়াকরে পানিতে ফেলবেন না। মনে রাখতে হবে, আমাদের প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার দায়িত্ব আমাদের নিজেদেরই।

দেখুনঃ সিলেটের সেরা ১০ আকর্ষণীয় জায়গা

Δημοσιεύθηκε στις 27 September 2017 | 4:00 pm


সিলেটের 'সবচেয়ে' সুন্দর প্রাকৃতিক ১০টি জায়গা

বিছানাকান্দ, সিলেট, বাংলাদেশ।
চিত্রঃ বিছানাকান্দ, সিলেট, বাংলাদেশ।

বিছানাকান্দি

এখানে খাসিয়া পাহাড়ের অনেকগুলো ধাপ দুই পাশ থেকে এক বিন্দুতে এসে মিলেছে। পাহাড়ের খাঁজে সুউচ্চ ঝর্ণা। বর্ষায় থোকা থোকা মেঘ আটকে থাকে পাহাড়ের গায়ে। পূর্ব দিক থেকে পিয়াইন নদীর একটি শাখা পাহাড়ের নীচ দিয়ে চলে গেছে ভোলাগঞ্জের দিকে। পাহাড় থেকে নেমে আসা স্রোতের সাথে বড় বড় পাথর এসে জমা হয় বিছনাকান্দি।

বিছনাকান্দি ও মুলতঃ জাফলংয়ের মতোই একটি পাথর কোয়ারী। শীতকালে যান্ত্রিক পাথর উত্তোলন- সেই সাথে পাথরবাহী নৌকা, ট্রাকের উৎপাতের কারনে পর্যটকদের জন্য এসময় উপযুক্ত নয়। কিন্তু বর্ষায় এইসব থাকেনা বলে পাহাড়, নদী, ঝর্ণা, মেঘের সমন্বয়ে বিছনাকান্দি হয়ে উঠে এক অনিন্দ্য সুন্দর গন্তব্য।

বিছনাকান্দি যাওয়ার একাধিক পথ আছে। বিমানবন্দরের দিকে এগিয়ে সিলেট গোয়াইনঘাট সড়ক ধরে হাতের বামে মোড় নিয়ে যেতে হয় হাদারপাড়। হাদারপাড় বিছনাকান্দির একেবারেই পাশে। এখান থেকে স্থানীয় নৌকা নিয়ে বিছনাকান্দি। হাদারপাড় পর্যন্ত গাড়ী যায়। সিলেট থেকে দূরত্ব বেশী না হলে ও কিন্তু রাস্তার অবস্থা ভালো নয়। (সিলেট) আম্বরখানা থেকে হাদারপাড় পর্যন্ত ভাড়ার সিএনজি পাওয়া যায়।

পর্যটকদের জন্য আরেকটি বিকল্প হচ্ছে- বিছনাকান্দি যাওয়ার জন্য পাংথুমাই চলে আসা। বড়হিল ঝর্ণার কাছ থেকেই পিয়াইন নদীর একটি শাখা পশ্চিম দিকে চলে গেছে বিছনাকান্দি। নৌকা নিয়ে পাহাড়ের নীচ দিয়ে প্রবাহমান এই পাহাড়ী নদী ধরে বিছনাকান্দি যাওয়ার মুহুর্তগুলো দারুন স্মরনীয় হয়ে থাকবে। নৌকা সময় লাগে একঘন্টার একটু বেশী।

রাতারগুল জলাবন

রাতারগুল বাংলাদেশের একমাত্র ফ্রেসওয়াটার সোয়াম্প ফরেস্ট। একসময় বিশাল এলাকা জুড়ে এই বনের অস্তিত্ব থাকলে ও এখন দুই বর্গকিমি এর মতো জায়গাজুড়ে টিকে আছে। এটি মুলতঃ হিজল ও কড়চ জাতিয় গাছের ঘনবন। বিভিন্ন প্রজাতির পাখী, বানর, সাপ ও অন্যান্য সরীসৃপের অভয়ারন্য।

রাতারগুল মুলতঃ তিনটি নদীর কাছাকাছি। দক্ষিন দিক থেকে চ্যাঙ্গের খাল এসেছে, পূর্বদিক থেকে কাফনা। চ্যাঙ্গের খাল ও কাফনা মিলে গোয়াইন নাম ধরে চলে গেছে উত্তরে গোয়াইনঘাটের দিকে। একটা সময় এই তিন নদীর পাড় ধরেই ছিলো রাতারগুলের অস্তিত্ব। বর্ষাকালে এই নদীগুলোর পানি ঢুকে যায় বনের ভেতরে এবং ১৫-২০ ফুট পর্যন্ত পানিবন্দী হয়ে পড়ে পুরো বন। তখন গাছগুলোর অর্ধক পানির উপর, অর্ধেক পানির নীচে, পানিতে ঘন জঙ্গলের ছায়া সবমিলিয়ে এক অভূতপুর্ব দৃশ্যের অবতারনা হয়।

রাতারগুল যদিও গোয়াইনঘাট উপজেলায় কিন্তু এটি সিলেট শহরের বেশ কাছাকাছি। এয়ারপোর্ট রোড ধরে এগিয়ে সিলেট- কোম্পানীগঞ্জ সড়কের ধুপাগুল পয়েন্ট থেকে ধুপাগুল- হরিপুর সড়ক ধরে একটু গেলেই মোটরঘাট। মোটরঘাট থেকে ছোট নৌকা নিয়ে বনের ভেতর ঢুকা যায়। এ ছাড়া মোটরঘাটের বদলে আরেকটু সামনে এসে রামনগর বাজার থেকে হাতের ডান দিকে চলে যাওয়া যায় রাতারগুল গ্রামে। গ্রামের ভেতর থেকে ও নৌকা নিয়ে গ্রামে ঢুকা যায়। এই গ্রামের মানুষেরা বেশ অতিথিপরায়ন। ফেরার সময় ধুপাগুলের দিকে না গিয়ে বিপরীতে হরিপুর চলে গেলে সিলেট-জাফলং মহাসড়ক।

জলমগ্ন অবস্থায় এই বনভ্রমন করতে হলে উপযুক্ত সময় বর্ষাকাল এবং সকাল কিংবা সন্ধ্যাবেলা। এ সময় পাখী ও বানরের উপস্থিতি বুঝা যায়। বর্ষার পানি নেমে যাবার পর কিছুদিন কর্দমাক্ত থাকে এরপর আবার শীতকালে রাতারগুল বন পায়ে হেঁটে ঘুরা যায়।

পর্যটকরা সকাল বেলা রাতারগুল ভ্রমন শেষে একইদিনে লালাখাল/ জাফলং/পাংথুমাই ঘুরে আসতে পারেন।

পান্তুমাই

পাংথুমাই সিলেট জেলার গোয়াইনঘাট উপজেলার পশ্চিমজাফলং ইউনিয়নের একটি গ্রাম। গ্রামটি মেঘালয় পর্বত শ্রেনীর পূর্ব খাসিয়া হিলসের কোলে। ছিমছাম, ছবির মতো সুন্দর এই গ্রামটির অন্যতম আকর্ষন হচ্ছে বিশাল ‘বড়হিল’ ঝর্ণা। যদিও ঝর্ণাটি ভৌগলিকভাবে ভারতের অন্তর্ভুক্ত কিন্তু একেবারে সামনাসামনি দাঁড়িয়েই এর উপচে পড়া সৌন্দর্য্য উপভোগ করা যায়। ঝর্নার নীচ থেকে বয়ে চলা পিয়াইন এর একটি শাখা নদী পশ্চিম দিকে প্রবাহমান। এই নদী ধরে আরেকটি পর্যটক গন্তব্য বিছনাকান্দি যাওয়া যায়।

পাংথুমাই যেতে হলে প্রথমে আসতে হবে গোয়াইনঘাট উপজেলা সদরে। সিলেট থেকে জাফলং রোড ধরে সারীঘাট( ৪২ কিমি) পৌঁছে হাতের বামদিকে ১৬ কিমি গেলেই গোয়াইনঘাট পয়েন্ট থেকে ডানে রাস্তা চলে গেছে উপজেলা অফিসে, বামের রাস্তা সিলেট এয়ারপোর্টের দিকে। বামের রাস্তায় এক কিমির মতো এগুলে গোয়াইনঘাট কলেজ। কলেজের পাশ দিয়ে পূর্বদিকে সরু রাস্তা ধরে ১২ কিমি এর মতো এগিয়ে গেলেই পাংথুমাই গ্রাম। এর আগে মাতুরতল বাজার। গ্রামের ভেতর পর্যন্ত পাকা রাস্তা। গাড়ী থেকে নেমে হাতের বামে গেলেই দৃশ্যমান- অপূর্ব সেই জলপ্রপাত।

ঝর্না ছাড়াও গোয়াইনঘাট-পাংথুমাই পথটি ও আকর্ষনীয়। পূর্ব দিকে এগুতে এগুতে বিশাল পাহাড় ক্রমশঃ কাছে এগিয়ে আসতে থাকে। নীল থেকে ক্রমশঃ সবুজ হয়ে উঠে, এর মধ্যে মাঝেমাঝেই মেঘ ও ঝর্ণার লুকোচুরি।

পাংথুমাই ভ্রমনের উপযুক্ত সময় এপ্রিল থেকে মধ্য অক্টোবর।

পর্যটকরা চাইলে লালাখাল ও পাংথুমাই একদিনে ভ্রমন করতে পারেন। সকাল বেলা গাড়ী নিয়ে লালাখাল পৌঁছে , নৌকা নিয়ে জিরোপয়েন্ট, চা বাগান ঘুরে রিভারকুইনে দুপুরের খাবার শেষে চলে আসতে পারেন পাংথুমাই। লালাখাল থেকে গাড়ী নিয়ে পাঙ্ঘতুমাই পৌঁছতে সময় লাগবে সর্ব্বোচ্চ একঘন্টা তিরিশ মিনিট। বিকেলটা ঝর্ণার নীচে কাটিয়ে সন্ধ্যার মুখে ফিরতে পারেন শহরে। সিলেট পৌঁছতে সময় লাগবে ঘন্টা দুয়েক।

লালাখাল ও পাংথুমাই মিলে ৬-৮ জন বহনকারী মাইক্রো ভাড়া হতে পারে ৫৫০০ - ৬০০০ টাকার মধ্যে। ৯-১২ জন বহনকারী মাইক্রো ভাড়া হতে পারে ৬৫০০ - ৭,৫০০ টাকার মধ্যে। শুক্রবার হলে আরেকটু বেশী ও হতে পারে।

জাফলং

অনিয়ন্ত্রিত পাথর উত্তোলন ও পাথরভাঙ্গা ( ক্রাশার) মেশিনের উৎপাতে আগের সেই সৌন্দর্য্য অবশিষ্ট না থাকলে ও এখনো সিলেটে বেড়াতে আসা পর্যটকদের কাছে জাফলং ‘মাস্ট সি’ গন্তব্য। উত্তর খাসিয়া হিলস থেকে নেমে আসা ডাউকী নদী বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে পিয়াইন নাম নিয়ে, এই পিয়াইন নদীর অববাহিকাতেই জাফলং- সিলেট জেলার গোয়াইনঘাট উপজেলার পূর্ব জাফলং ইউনিয়নে। সিলেট শহর থেকে ৬২ কিমি উত্তর-পূর্বে এর অবস্থান, গাড়ী থেকে নেমে ভাড়ার নৌকা নিয়ে জিরোপয়েন্টে যাওয়া যায়, যেখানে রয়েছে ডাউকি’র ঝুলন্ত সেতু। খেয়া বা ভাড়া নৌকায় নদী পেরিয়ে পশ্চিম তীরে গেলে খাসিয়া আদিবাসীদের গ্রাম সংগ্রামপুঞ্জি ও নকশীয়াপুঞ্জি। নদীর পাড় থেকে স্থানীয় বাহনযোগে এসব পুঞ্জী ঘুরে বেড়ানো যায়। নকশীয়াপুঞ্জির পাশেই জাফলং চা বাগান। কোন কোন পর্যটক চা বাগানে ঘুরে বেড়াতে ও পছন্দ করেন

জাফলং যাওয়ার সাত কিঃমি আগে তামাবিলে ও পর্যটকরা যাত্রাবিরতি করেন। তামাবিল মুলতঃ ল্যান্ড কাস্টমস ও ইমিগ্রেশন চেকপোষ্ট। কাস্টমস অফিসের ঠিক পেছনেই সীমান্তরেখা ঘেঁষে অবস্থান করছে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের গনকবর।

তামাবিল যাওয়ার আগে জৈন্তিয়াপুর উপজেলা সদর। ইতিহাসপ্রিয় পর্যটকরা এখানে পুরনো রাজবাড়ীর ধ্বংসাবশেষ দেখে যেতে পারেন। উল্লেখ্য যে, প্রাগৈতিহাসিককাল থেকে জৈন্তিয়া ছিলো একটি স্বাধীন রাজ্য যা ১৮৩০ সালে বৃটিশ সাম্রাজ্যের দখলভুক্ত হয়। প্রাচীন রাজ্য জৈন্তিয়ার গুরুত্বপূর্ণ জনগোষ্ঠী খাসিয়াদের স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে এখনো কিছু ম্যাগালিথিক স্মৃতিস্তম্ভ চোখে পড়ে। জ়ৈন্তিয়াপুর উপজেলা অফিসের কাছেই রয়েছে সাইট্রাস গবেষনা কেন্দ্র। তেজপাতা, লেবু, সাতকড়া সহ বিভিন্ন প্রজাতির ফলের বাগান রয়েছে এখানে, এই গবেষনা কেন্দ্র থেকে অদূরেই বেশ কয়েকটি ঝর্ণা দৃশ্যমান।

জৈন্তিয়াপুর ও তামাবিল এর মাঝামঝি রয়েছে শ্রীপুর। হাতের বামে শ্রীপুর পিকনিক সেন্টার, ডানপাশে একটূ এগিয়ে গেলেই শ্রীপুর পাথর কোয়ারী।

বিশেষ করে বর্ষাকালে জৈন্তাপুর থেকে তামাবিল পর্যন্ত ভ্রমন এক অনন্য অভিজ্ঞতা। সড়কের পাশেই মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে বিশাল খাসিয়া পর্বত, ঘনসবুজে ঢাকা। এই সবুজের মধ্যে সাদা মেঘের দূরন্ত খেলা আর অনেকগুলো ঝর্ণার উচ্ছ্বাস।

যদি ও শীতকালেই পর্যটক সমাগম বেশী হয় কিন্তু এই অঞ্চলের পাহাড়ের সবুজ, মেঘ ও ঝর্ণার প্রকৃত সৌন্দর্য্য উপভোগ করা যায় বর্ষাকালে। সিলেটে বর্ষা সাধারনতঃ দীর্ঘ হয়। সেই হিসেবে এপ্রিল থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ভ্রমনের উপযুক্ত সময়।

সরাসরি জাফলং যেতে সিলেট থেকে গাড়ীতে সময় লাগে একঘন্টা ত্রিশ মিনিটের মতো। জৈন্তাপুর, শ্রীপুর, তামাবিলে যাত্রাবিরতি করলে সময় সেই অনুযায়ী বেশী লাগবে। সিলেট শহর থেকে ৬-৮ জন বহনকারী মাইক্রো ভাড়া হতে পারে ৪৫০০ - ৫০০০ টাকার মধ্যে। ৯-১২ জন বহনকারী মাইক্রো ভাড়া হতে পারে ৫৫০০ - ৬০০০ টাকার মধ্যে। শুক্রবার হলে আরেকটু বেশী ও হতে পারে। নৌকা নিয়ে জিরোপয়েন্টে যেতে স্থানীয় নৌকায় ৫০০ টাকার মতো খরচ পড়ে। নাজিমগড় রিসোর্টসের পরিচালনায় কিছু যান্ত্রিক নৌকা ও আছে, এগুলোর খরচ একটু বেশী।

নদী পেরিয়ে খাসিয়া পুঞ্জিতে যেতে স্থানীয় বাহনে ( ময়ূরী নামে পরিচিত) খরচ পড়বে সময়ভেদে ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা।

নদীর পূর্ব পাড়ে স্থানীয় মানের কিছু খাবারের দোকান আছে। পশ্চিমপাড়ে সংগ্রামপুঞ্জির ভেতরে রয়েছে নাজিমগড় রিসোর্টসের পরিচালনায় ‘ক্যাফে সেংগ্রাম্পুঞ্জি’। খাবারের দাম স্থানীয় দোকানগুলো থেকে বেশী কিন্তু খাবারের মান, পরিবেশনা এবং রেস্টুরেন্টের নান্দনিক সৌন্দর্য্য অনুযায়ী খুব বেশী নয়। এই ক্যাফেতে বসে কফির কাপে চুমুক দিতে দিতে খাসিয়া পাহাড়, পিয়াইন নদী, ডাউকীর ঝুলন্ত ব্রীজের ছবির মতো দৃশ্য উপভোগ্য।

লালাখাল

মেঘালয় পর্বত শ্রেনীর সবচেয়ে পুর্বের অংশ জৈন্তিয়া হিলসের ঠিক নীচে পাহাড়, প্রাকৃতিক বন, চা বাগান ও নদীঘেরা একটি গ্রাম লালাখাল, সিলেট জেলার জৈন্তিয়াপুর উপজেলায়। জৈন্তিয়া হিলসের ভারতীয় অংশ থেকে মাইন্ডু ( Myntdu) নদী লালাখালের সীমান্তের কাছেই সারী নদী নামে প্রবেশ করেছে এবং ভাটির দিকে সারীঘাট পেরিয়ে গোয়াইন নদীর সাথে মিশেছে। লালাখাল থেকে সারীঘাট পর্যন্ত নদীর বারো কিমি পানির রঙ পান্না সবুজ- পুরো শীতকাল এবং অন্যান্য সময় বৃষ্টি না হলে এই রঙ থাকে। মুলতঃ জৈন্তিয়া পাহাড় থেকে আসা প্রবাহমান পানির সাথে মিশে থাকা খনিজ এবং কাদার পরিবর্তে নদীর বালুময় তলদেশের কারনেই এই নদীর পানির রঙ এরকম দেখায়।

সিলেট জাফলং মহাসড়কে শহর থেকে প্রায় ৪২ কিমি দূরে সারীঘাট। সারীঘাট থেকে সাধারনতঃ নৌকা নিয়ে পর্যটকরা লালাখাল যান। স্থানীয় ইঞ্জিনচালিত নৌকায় একঘন্টা পনেরো মিনিটের মতো সময় লাগে সারী নদীর উৎসমুখ পর্যন্ত যেতে। নদীর পানির পান্না সবুজ রঙ আর দুইপাশের পাহাড় সারির ছায়া- পর্যটকদের মুগ্ধ করে। উৎসমুখের কাছাকাছিই রয়েছে লালাখাল চা বাগান।

সারীঘাটে নাজিমগড় রিসোর্টসের একটি বোট স্টেশন আছে। এখান থেকে ও বিভিন্ন ধরনের ইঞ্জিন চালিত নৌকা নিয়ে লালাখাল যাওয়া যায়। লালাখালে সারী নদীর তীরে নাজিমগড়ের একটি মনোরম রেস্টুরেন্ট রয়েছে- ‘রিভার কুইন’ । সব অতিথিদের জন্যই এটি উন্মুক্ত। রিভারকুইন রেস্টুরেন্টের পাশেই রয়েছে ‘এডভেঞ্চার টেন্ট ক্যাম্প ‘ । এডভেঞ্চার প্রিয় পর্যটকরা এখানে রাত্রিযাপন করতে পারেন। নদীপেরিয়ে লালাখাল চা বাগানের ভেতর দিয়ে রয়েছে প্রাকৃতিকভাবে গড়ে উঠা হাঁটার পথ ( ট্রেকিং ট্রেইল)

এ ছাড়া পেছনে পাহাড়ের ঢাল ও চুঁড়োয় গড়ে উঠেছে নাজিমগড়ের বিলাসবহুল নতুন রিসোর্ট ‘ওয়াইল্ডারনেস’। আবাসিক অতিথি ছাড়া এখানে প্রবেশাধিকার সংরক্ষিত।

সরাসরি গাড়ী নিয়ে ও লালাখাল যাওয়া যায়। সারী ব্রীজ় পেরিয়ে একটু সামনেই রাস্তার মাঝখানে একটি পুরনো স্থাপনা।এটি ছিলো জৈন্তিয়া রাজ্যের রাজকুমারী ইরাবতীর নামে একটি পান্থশালা। এর পাশ দিয়ে হাতের ডানের রাস্তায় ঢুকে সাত কিমি গেলেই লালাখাল। লালাখাল এ রিভার কুইন রেস্টুরেন্ট এর সামনে থেকে ও নৌকা নিয়ে জিরোপয়েন্ট ঘুরে আসা যায়।

সিলেট শহর থেকে লালাখাল পর্যন্ত ৬-৮ জন বহনকারী মাইক্রো ভাড়া হতে পারে ৩৫০০ - ৪০০০ টাকার মধ্যে। ৯-১২ জন বহনকারী মাইক্রো ভাড়া হতে পারে ৪৫০০ - ৫,৫০০ টাকার মধ্যে। শুক্রবার হলে আরেকটু বেশী ও হতে পারে।

সারীঘাট থেকে স্থানীয় নৌকা নিয়ে লালাখাল যেতে খরচ পড়বে ১০০০-১৫০০ টাকার মতো খরচ পড়ে। আর নাজিমগড় বোট স্টেশনের বিশেষায়িত নৌকাগুলোর ভাড়া ২০০০-৫০০০ টাকা পর্যন্ত। গাড়ী নিয়ে লালাখাল চলে গেলে রিভারকুইন রেস্টুরেন্ট থেকে আধাঘন্টার জন্য নৌকা ভাড়া পড়বে ৫০০ টাকা। দুপুরের খাবার প্রতিজন ৪০০-৫০০ টাকা।

যাদুকাটা নদী

নদীমাতৃক বাংলাদেশের সুন্দর নদীগুলো ও পর্যটকদের জন্য আকর্ষন। বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দর নদীগুলোর একটি জাদুকাটা, সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলার লাউড়েরগড় এলাকায়।

এই নদীর পুরোনো নাম রেণুকা। রেণুকা নদী মেঘালয় পাহাড় থেকে বাংলাদেশে এসে প্রবেশ করেছে। এর একপাশে শাহআরেফিন এর মাজার। মাজারের পেছনে বর্ষায় একটি দৃষ্টিনন্দন ঝর্ণার দেখা পাওয়া যায়। আরেকপাশে উঁচু একটি টিলা, টিলার উপর থেকে নদীর প্রবেশ মুখ সহ অনেকদূর দেখা যায়। এই টিলাই স্থানীয়ভাবে বারিকের টিল্লা নামে পরিচিত। টিলার পেছনে একটি গীর্জা, গীর্জার পাশ দিয়ে একটি সরু পাকা রাস্তা নেমে চলে গেছে পশ্চিমের দিকে। এই রাস্তা ধরে এগুলো আদিবাসী গারোদের গ্রাম। আরো সামনে গেলে বড়ছড়া পাথর কোয়ারী, তারপর টেকেরঘাট।

শীতকালে সুনামগঞ্জ শহরের সাহেববাড়ীর খেয়াঘাট পাড় থেকে ভাড়ার মোটর সাইকেল নিয়ে বারিকের টিল্লা ঘুরে আসা যায়। আরেকটু সামনে টেকের ঘাট গিয়ে সেখান থেকে নৌকা ভাড়া করে টাঙ্গুয়া হাওর ভ্রমন করা যায়।

বর্ষায় বজরা/ লঞ্চ করে টাঙ্গুয়া ঘুরতে এলে, টেকেরঘাট থেকে মোটরসাইকেল ভাড়া নিয়ে জাদুকাটা নদী/ বারিকের টিল্লা ভ্রমন সম্ভব।

টাঙ্গুয়ার হাওর

উত্তর পশ্চিম সিলেটে, মেঘালয় পাহাড়ের পাদদেশে সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর ও ধর্মপাশা উপজেলার মধ্যবর্তী স্থানে প্রায় ১০০ বর্গকিমি এলাকা জুড়ে টাঙ্গুয়ার হাওরের অবস্থিতি। মেঘালয় পাহাড় থেকে ৩০ টির মতো ঝর্না/ ছড়া এসে মিশেছে এই হাওরে। ২০০০ সালে এটি ‘রামসার সাইট’ হিসাবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করে। সুন্দরবনের পর এটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় রামসার সাইট। এর আগে ১৯৯৯ সালে বাংলাদেশ সরকার টাঙ্গুয়ার হাওরকে ‘পরিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা’ হিসেবে ঘোষনা কর